টাঙ্গাইলে কন্যা সন্তান জন্ম দিলেই উপহার পাঠাবেন অফিসার ইনচার্জ

কন্যা সন্তান বোঝা নয় আশীর্বাদ, কন্যা সন্তান আল্লাহর শ্রেষ্ঠ পুরস্কার। কন্যা সন্তান জ’ন্ম হলে ফোন করুন উপহার পৌঁছে যাবে। এ ধরনের ফেস্টুন টানিয়ে রেখেছে টাঙ্গাইল কাগমারী পু’লি’শ ফাঁড়ির ই’ন’চা’র্জ মো. মোশারফ হোসেন।

টাঙ্গাইল জে’লা সংবাদ এর ক্রিকেটর নওশাদ রানা সানভী বলেন, আমি কাগমারী পু’লি’শ ফাঁড়িতে যাই একটি কাজে। সেখানে ফাঁড়ির ই’ন’চা’র্জের রুমে প্রবেশ ক’রেই দেখি ফেস্টুন। ফেস্টুনের লেখা দেখে খুব ভালো লাগে। তা ছবি তুলে গ্রুপে পোস্ট ক’র’লে মুহূর্তেই ভা’ই’রা’ল হয়।

হাজার হাজার লাইক কমেন্ট শেয়ার হয়। সাথে সাথে মোশারফ হোসেনের কাছে ফোন আসতে থাকে বিভিন্ন জে’লা ও দেশের বাইরে থেকে। তাকে অনেকেই সাধুবাদ জানান। টাঙ্গাইল থেকে অনেকে উৎসাহী হয়ে তাকে ফোন ক’রে ঠিকানা দেন।

উপচারপ্রাপ্ত মাসুদা খাতুন বলেন, কন্যা সন্তান জ’ন্ম হলেই পাবেন পুরস্কার, ফেসবুকে পু’লি’শ ক’র্মকর্তার এমন স্ট্যাটাস দেখে আমি পুরস্কার নিতে এসেছি। আমি পুরস্কার পেয়ে খুবই আনন্দিত। আমার প্রথম কন্যা সন্তান হয়েছে। কন্যা সন্তান হওয়ায় আমি ও আমার স্বা’মীও খুবই খুশি।

গোলাম রাব্বানী রাসেল বলেন, আমি দুই কন্যা সন্তানের পিতা। আমি খুবই খুশি। আর পু’লি’শ ক’র্মকর্তার উপহার পেয়ে আনন্দিত। সুমাইয়া আক্তার সাথী বলেন, আমি উপহার পেয়ে খুবই আনন্দিত।

মোশারফ হোসেনের বলেন, আমি গ্রাম এলাকায় লক্ষ ক’রেছি কন্যা সন্তান হলে অনেকে মন খা’রা’প ক’রে। তাদের উৎসাহিত করা যে ছেলে মেয়ে সব সমান, মেয়েরা দেশের গু’রু’ত্বপূর্ণ পদে না’রীরা আছে।