ধ,র্ষ.ণ চেষ্টাকারীর ‘বিশে’ষ অ’ঙ্গ’ কে’টে বি’প’দে গৃহ’ব’ধূ

ভোলার চরফ্যাসনে ঘরে ডুকে ধ’র্ষ’ণের চেষ্টাকারীর বিশেষ অ’ঙ্গ কে’টে নিজে’র স’ম্ভ্র’ম র’ক্ষাকারী গৃ’হব’ধূর পরিবার এখন ভু’গ’ছে নি’রাপ’ত্তহী’ন’তায়।

ঘ’টনার ১৩ দিনে পরেও গ্রে’ফতা’র হয়নি ধ’র্ষ’ণের চেষ্টায় বিশেষ অ’ঙ্গ হা’রানো মো. নঈম। পু’লিশের চোখ এড়িয়ে নঈমের লোকজন নি’র্যা’তি’তা গৃহিণী ও ঘ’টনার সা”ক্ষীদের এলাকা ছাড়ার জন্য দিচ্ছে হু’মকি। আ’দা’লতে দা’য়ের ক’রেছে একাধিক মি’থ্যা মা’ম’লা। এ অব’স্থায় অ’ভিযু’ক্ত মো. নঈমকে গ্রে’ফতা’র ক’রে,

অস’হায় পরিবারসহ সা”ক্ষীদের নি’রাপত্তা নি’শ্চিত ক’রার দা’বি এলাকাবাসীর। পু’লিশ ও স্থা’নীয়রা জা’নায়, গত ২৭ সেপ্টেম্বর রাতে চরফ্যাসন উপজে’লার রসুলপুর ইউনিয়নের ভাষানচর গুচ্ছ গ্রামে ঘরে ঢু’কে এক গৃ’হব’ধূকে ধ’র্ষ’ণের চেষ্টা ক’রে একই এলাকার নঈম। ল’ম্প’ট নঈমের বিশেষ অ’ঙ্গ কে’টে নিজে’র স’ম্ভ্র’ম র’ক্ষা ক’রে ওই গৃ’হব’ধূ।

এ ঘ’টনায় পরদিন নঈমকে আ’সা’মি ক’রে শশীভুষণ থা’নায় মা’ম’লা ক’রা হয়। আ’হত নঈম প্রথমে চরফ্যাসন উপজে’লা স্বা’স্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে বরিশাল শেরই বাংলা মেডিকেল কলেজ হা’সপাতা’লে চিকিৎ’সা নিলেও পু’লিশ এখনও তাকে গ্রে’ফতা’র ক’রতে পারেনি।

এদিকে ঘ’টনার পর থেকেই নঈমের বাবা আজম আলী সরদারের নেতৃত্বে স’ন্ত্রা’সীরা নি’র্যা’তি’তাকে এলাকা ছাড়ার হু’মকি দিচ্ছে। রাতের আধারে হা’ম’লা চালিয়ে ভ’য়ভীতি দেখানোর পাশাপাশি আ’দা’লতে দা’য়ের ক’রেছে একাধিক মি’থ্যা মা’ম’লাও। মানুষের ম’ল-মূ’ত্র এনে ঘরের সামনে ফেলে যাতায়াতে বাঁ’ধা সৃষ্টি করছে।

নি’র্যা’তনে’র শি’কার ওই গৃহিণী জা’নান, নঈমের আত্মীয়স্বজনরা রাতের আঁধারে গুচ্ছ গ্রামে ঢু’কে তাকে নানাভাবে হয়রানি করছে। এতে তিনি আ’তং’কি’ত। এ ঘ’টনায় ১০ অক্টোবর শশীভুষণ থা’নায় একটি জি’ডি ক’রেছেন তিনি। শুধু নি’র্যা’তি’তা নয়, ঘ’টনার সা”ক্ষীদেরও মি’থ্যা মা’ম’লা দিয়ে হয়রানি ক’রার,

অ’ভিযো’গ উঠেছে নঈমের বাবা আজম আলী সরদারের বি’রুদ্ধে। অব্যা’হত হু’মকির পাশাপাশি আজম আলী সরদার বা’দী হয়ে চরফ্যাসন সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আ’দা’লতে ১ অক্টোবর একটি মা’ম’লা ক’রেছে। ওই মা’ম’লায় নি’র্যা’তি’তা গৃ’হব’ধূ, ঘ’টনার সা”ক্ষীসহ ৯ জনকে আ’সা’মি ক’রা হয়েছে।

মা’ম’লায় অ’ভিযো’গ আ’সা’মিরা নঈমকে ডেকে এনে হ’ত্যার উদ্দেশ্যে তার বিশেষ অ’ঙ্গ কাটতে চেয়েছে। তবে নির্যাতিত গৃ’হব’ধূ ও ঘ’টনার সা”ক্ষীদের হয়রানি ক’রতেই মি’থ্যা অ’ভিযো’গে মা’ম’লা ক’রা হয়েছে বলে স্থা’নীয়রা উল্লেখ ক’রেন। পু’লিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার জা’নিয়েছেন, আ’সা’মি প’লাত’ক রয়েছে।

ভোলা-বরিশালের বিভিন্ন হা’সপাতা’ল ও ক্লিনিকে খোঁ’জ নিয়ে পাওয়া যায়নি। এখন ঢাকার হা’সপাতা’ল ও ক্লিনিকে খোঁ’জ নেয়া হচ্ছে। গ্রে’ফতা’রের চেষ্টা অব্যা’হত রয়েছে। এছাড়া হু’মকিদাতাদের দ্রুত আ’ইনের আওতায় আনার জন্য পু’লিশ চেষ্টা করছে। নি’র্যা’তনে’র শি’কার ওই নারীর পরিবার নদী ভা’ঙনে সর্বস্ব হারিয়ে এক বছর আগে ভাষানচর গুচ্ছ গ্রামে আশ্রয় নেয়।